Snapdragon 710,Snapdragon 660,Nokia 7 Plus,Xiaomi mi 8 SE (Explained in Bengali)



বেশ কিছু দিন আগে কোয়াল্কমের পক্ষ থেকে স্ন্যাপড্রাগন ৭১০ নামে নতুন একটা মিডরেঞ্জ সিংহ (সিপিইউ) বাজারে ছাড়া হয় যা নিয়ে রীতিমত হইচই পড়ে যায় টেকগিকদের মাঝে।বিশেষ কিছু ক্ষেত্রে খুব বেশী নজর দেওয়া হয়েছে এই প্রসেসরে।কোয়াল্কমের ওয়েবসাইট থেকে পাওয়া কিছু তথ্য নিয়ে আজকে আপনাদেরকে জানাতে চেষ্টা করব কেনো এই প্রসেসরকে অন্যভাবে দেখছে টেকগিকরা।
সর্বপ্রথম যে কথা না বললেই নয় তা হলো এর আর্কিটেকচার নিয়ে।বরাবরের মত এবারেও কোয়াল্কমের এই প্রসেসরটি নকশা করেছে স্মার্টফোন প্রসেসরের নকশার জন্য খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠান আর্ম (ARM).আর এ প্রসেসরটি তৈরী করতে তারা ব্যবহার করেছে এখন পর্যন্ত সবচাইতে আপডেটেড ১০ ন্যানোমিটারের নকশা (কর্টেক্স এ ৭৫)এখানে আপনাদের একটু জানিয়ে রাখতে চাই যে একটা প্রসেসরের নকশায় এক ট্রাঞ্জিস্টোর থেকে আরেক ট্রাঞ্জিস্টোরের দুরত্ব যত কাছাকাছি হবে সেই প্রসেসর তত বেশী দ্রুত কাজ করতে পারবে এবং হিটিং ইশ্যুও কম হবেএজন্য স্বাভাবিকভাবেই স্ন্যাপড্রাগনের আরেক মিডরেঞ্জ কিলার এসডি ৬৬০ এর চেয়ে পারফর্মেন্সের দিক দিয়ে প্রায় ২০ ভাগ এগিয়ে গেছে এসডি ৭১০ আর এতে হিটিং ইশ্যুও তেমন একটা নেই (কারণ এসডি ৬৬০ এ ১৪ ন্যানোমেটার টেকনোলজি ব্যবহার করা হয়েছে।তবে এসডি ৬৬০ চীপে হিটিং ইশ্যু তেমন একটা আছে বলে আমার জানা নেই)।এ ছাড়াও কোয়াল্কম জানিয়েছে এসডি ৬৬০ এর চেয়ে প্রায় ৪০ ভাগ পাওয়ার এফিসিয়েন্ট (কম পাওয়ার খরচ করে) স্ন্যাপড্রাগন ৭১০ চীপসেট।
২য় প্রসঙ্গে আসছে আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স বা (এআই/AI).এই চীপে আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্সকে অনেক বেশী গুরুত্ব দেওয়ার জন্য মাল্টিকোর AI ইঞ্জিন ব্যবহার করা হয়েছে যা ছবি তোলা এবং ফেস আনলকের মত বিষয়গুলোকে আরো এক ধাপ সামনে নিয়ে গেছে মিডরেঞ্জারদের জন্য।
এছাড়াও থাকছে 4k ভিডিও ক্যাপচারের সুবিধা।স্পেকট্রা isp 250 সুবিধা থাকায় সর্বচ্চ ৩২ মেগাপিক্সেল (সিঙ্গেলে ক্যামেরার ক্ষেত্রে) এবং ডুয়েল ক্যামেরার ক্ষেত্রে সর্বচ্চ ২০ মেগাপিক্সেল সেন্সর ব্যবহার করা যাবে এই চীপে।
গ্রাফিক্স এবং থ্রীডি গেমিং এর জন্য ভালো আউটপুট পেতে ব্যবহার করা হয়েছে অ্যাড্রিনো ৬১৬ জিপিইউ যা আপনাকে যে কোন গেম খেলার মত সুবিধা দিতে সক্ষম।আরো ব্যবহার করা হয়েছে কোয়াল্কম ৪র্থ প্রজন্মের কুয়িক চার্জ টেকনোলজি তাই চার্জ হতেও বেশী সময় লাগবেনা।তবে হিটিং ইশ্যু একেবারেই ভুলে যান!ফোন হিট হবার দিন শেষ!
ওভারঅল দিক বিশ্লেষণ করলে বোঝা যাচ্ছে বেশ ভালো মানের প্রসেসর এটি।যদিও ৮০০ সিরিজের নতুন জেনারেশনের (যেমন এসডি ৮৪৫) প্রসেসরগুলোর তুলনায় এর পারফর্মেন্স অনেক কম হবে কিন্তু তারপরেও মিডরেঞ্জ ক্রেতাদের কথা চিন্তা করলে মানতেয় হবে অনেক ভালো একটা চীপ দিয়েছে কোয়াল্কম।
অনেকেই এসডি ৬৬০ এর সাথে ৭১০ এর তুলনা করছেন।কিন্তু এতে তুলনা করার মত তেমন কিছুই নেই।কারণ এসডি ৬৬০ এরই একটি আপগ্রেড ভার্সন এটি (এসডি ৭১০)।তাই স্বাভাবিকভাবেই এসডি ৬৬০ থেকে এর পারফর্মেন্স এর দিক থেকে একটু হলেও এগিয়ে থাকবে এসডি ৭১০।আর কাগজে কলমে হিসেব কষলেও এই একই বিষয় চোখে আসবে।কারণ এসডি ৬৬০ এ ১৪ ন্যানোমিটারের টেকনোলজি ব্যবহার করা হয়েছে যেটা এসডি ৭১০ (১০ ন্যানোমিটার) এর চেয়ে পুরোনো।এমনকি এতে জিপিইউটাও ব্যবহার করা হয়েছে অ্যাড্রনো ৫১২ যার থেকে অ্যাড্রিনো ৬১৬ নিঃসন্দেহে অনেক এগিয়ে।

তাহলে এখন মনে হতে পারে নকিয়া ৭ প্লাসের চাইতে শ্যাওমি মি ৮ স্পেশাল এডিশনটা অনেক ভালো হবে (যেহেতু নকিয়া ৭ প্লাস স্ন্যাপড্রাগন ৬৬০ এবং শ্যাওমি মি ৮ স্পেশাল এডিশন স্ন্যাপড্রাগন ৭১০ দিয়ে বানানো)।হ্যাঁ অনেক ক্ষেত্রেই শ্যাওমি মি ৮ এসই (mi 8 SE) এগিয়ে থাকবে যেহেতু এই ডিভাইসটিতে সবচেয়ে আপডেটেড হার্ডওয়ার ব্যবহার করা হয়েছে (বিশেষ করে যদি ব্যাটারি ব্যাকআপ কিংবা স্পিডের কথা ধরা হয়)।কারণ স্ন্যাপড্রাগন ৭১০ অনেক বেশী পাওয়ার এফিসিয়েন্সি একটি প্রসেসর স্ন্যাপড্রাগন ৬৬০ এর তুলনায়।কিন্তু তারপরেও ক্যামেরা সেকশনে একটু এগিয়ে নকিয়া ৭ প্লাস এরকমটা মনে হয়েছে আমার কাছে (যদিও এটা একান্তই আমার নিজের মতামত)।
কিন্তু ৩০ হাজার টাকা বাজেটে শ্যাওমি মি ৮ এসই অনেক সুন্দর একটা ডিভাইস এতে কোন সন্দেহ নেই কারণ এর বিল্ড থেকে শুরু করে কোথাও একটা খুঁত খুজে বের করা দায়ের বিষয়।শুধুমাত্র ডিজাইন ব্যতিত এই ফোনে ভালো না লাগার মত কিছুই খুজে পাই নি আমি।ডিজাইনটার কথা বললাম কারণ হুবহু আইফোন ১০ কে কপি করা হয়েছে!পেছনের mi লোগোটাকে যদি আংগুল দিয়ে লুকিয়ে রাখতে পারেন তাহলে যে কেউই আইফোন ১০ ভেবে ভুল করে বসতে পারেন!
দুইটার যেকোন একটা ডিভাইস অনায়াসে কিনে ফেলতে পারেন নিজের চাহিদা অনুযায়ী (কারণ দুইটার দাম প্রায় একই)।কোন ডিভাইসি আপনাকে মোটেও ভুগাবেনা।হার্ডওয়ার অনুযায়ী নকিয়া ৭ প্লাসের গেমিং এক্সপেরিয়েন্স খুবই ভালো আর ডিভাইসেও তেমন কোন হিটিং ইশ্যু নেই আবার ডিজাইনও কারো কাছ থেকে কপি করা না!তবে শ্যাওমির আরকটি মিডরেঞ্জ কিলার রেডমি নোট ৫ প্রো যারা কেনার কথা ভাবছেন তাদের জন্য একটু বলি,নোট ৫ প্রো ওই বাজেটে অসাধারণ একটা ডিভাইস এ নিয়ে আমি আপনার সাথে কিন্তু মোটেও দ্বিমত নই!বাজেট অনুযায়ি পারফর্মেন্স ঠিক আছে।তবে বাজেট যদি একটু বাড়িয়ে নিতে পারেন অবশ্যই নকিয়া ৭ প্লাস রিকমেন্ডেড।কারণ এত দিন পর নকিয়া একখান ডিভাইস বের করতে পেরেছে!আনঅফিসিয়ালি ৩০ হাজারের আশেপাশে পেয়ে যেতে পারেন।তবে শ্যাওমি ফ্যান হলে বা HDR কন্টেন্ট উপভোগ করতে চায়লে নকিয়ার দিকে যাবার প্রশ্নই আসে না কারণ mi 8 se তে ব্যবহার করা হয়েছে HDR10 ডিসপ্লে।
আজ এ পর্যন্তই থাক যে কোন সমস্যা অথবা যেকোন বিষয় জানতে কমেন্ট বক্সে লিখুন,টেকনোলজির সাথেয় থাকুন।Bye!

Snapdragon 710,Snapdragon 660,Nokia 7 Plus,Xiaomi mi 8 SE (Explained in Bengali) Snapdragon 710,Snapdragon 660,Nokia 7 Plus,Xiaomi mi 8 SE (Explained in Bengali) Reviewed by Rone Ahmed on July 15, 2018 Rating: 5

No comments:

Powered by Blogger.