গুগোল সার্চ ইঞ্জিন হিসেবে বিং এর চাইতে যে দিকগুলো থেকে এখনো পিছিয়ে আছে (google vs bing)


গুগোল (Google.com) নাকি বিং (Bing.com) কোনটা সার্চ ইঞ্জিন হিসেবে বেশী ভালো এবং অ্যাকুরেট রেজাল্ট দেয় এ নিয়ে দ্বন্দের শেষ নেই। যারা গুগোলার (গুগোল ফ্যান/গুগোল ব্যবহারে অভ্যস্ত) তাদের মতে গুগোলই হচ্ছে সেরা সার্চইঞ্জিন, অন্যদিকে যারা মাইক্রোসফটের ফ্যান বা বিং (Bing) ব্যবহার করেন তাদের ধারণা বিং (Bing) গুগোলের (Google) চেয়ে অনেক অ্যাকুরেট ফলাফল প্রদর্শন করে। এই বিষয়টা যেহেতু একান্তই একেকজনের একেকরকম অভিজ্ঞতা থেকে তৈরী হয়েছে তাই এ নিয়ে দ্বন্দ শেষ হবার নয়। কিন্তু আমরা আজকে এই দুই সার্চইঞ্জিনের মধ্যে কিছু তুলনা করে বিষয়টা পরিষ্কার হবার চেষ্টা করব সত্যিকার অর্থে কোন সার্চইঞ্জিন বেশী অ্যাকুরেট (accurate) এবং ওয়ার্কিং (working) ফলাফল দেয়।
পৃথিবীর বেশীরভাগ মানুষ এখন সার্চইঞ্জিন হিসেবে গুগোল ব্যবহার করছে। অন্যদিকে এতপরে (৯ বছর আগে। ২০০৯ সালে) জন্ম গ্রহন করার পরেও বিং এখন সার্চইঞ্জিন হিসেবে ২য় স্থানে অবস্থান করছে। গত কয়েক বছরে মাইক্রোসফট তাদের সার্চইঞ্জিনকে একটি শক্ত অবস্থানে নিয়ে যাবার জন্য ভালো পরিমাণ অর্থ এর পেছনে খরচ করেছে। বিনিময়ে এখন ইউএসএর মার্কেটে গুগোলের শেয়ার অনেকটায় কমে গেছে। তবে তার পরেও সারা বিশ্বে এখনো গুগোল রাজ করছে সার্চইঞ্জিন ব্যবসায়।

হোমপেজ

শুরুতেয় এদের হোমপেজের কথা না বললেয় নয়। গুগোলের হোমপেজকে বরাবরই খুব সাদামাটা পর্যায়ে রাখা হয়েছে। কারণ এর প্রতিষ্ঠাতা ল্যারি পেজ এবং সার্গেয় ব্রেন বেসিক এইচটিএমএল ছাড়া তেমন কোডিং পারতেন না। অন্যদিকে মাইক্রোসফট বিং (bing) এর সৌন্দর্য্য বাড়াতে কোন কমতি রাখে নি। বিশেষ করে এর হোমপেজের ব্যাকগ্রাউন্ড ইমেজের কথা না বললেয় নয়, প্রতিদিন আন্তর্জাতিক সময় ১৩.০০ টা বা বাংলাদেশ সময় দুপুর ১টায় বিং এর হোমপেজ ইমেজটি অটোমেটিক পরিবর্তন হয়। অসাধারণ কিছু ফটো এখানে চোখে পড়বে আপনার যা মাঝে মাঝে আপনার খারাপ মনকেও ভালো করে দিতে পারে যখন আপনি আপনার ব্রাউজারের ড্যাশবোর্ডে/হোমপেজে এই ধরনের কিছু ছবি দেখতে পাবেন।

ভিডিও সার্চ
ভিডিও সার্চের জন্য বিং এর একটা আলাদা সুনাম আছে। কারণ কোন একটা প্রসঙ্গে সার্চ করলে ঐ প্রসঙ্গ সংক্রান্ত যে ভিডিও গুলো আছে সেগুলো সার্চইঞ্জিনের ভিডিও অপশনে ক্লিক করলে গুগোলেও দেখা যায়, কিন্তু বিং এ দিক থেকে এগিয়ে থাকবে ভিডিও প্রিভিউ (preview) শো করবার জন্য। বিং এ আপনি ভিডিও গুলোর প্রিভিউ দেখতে পারবেন (মাউসের কার্সরটা ভিডিওটির ওপরে রাখলে) এজন্য আলাদাভাবে ঐ লিঙ্কে ক্লিক করে ঐ পেজে ভিজিট করতে হবে না, যেটা আসলেই খুব মজার বিশেষ করে যারা ভিডিও কন্টেন্ট বেশী সার্চ করেন। এদিক থেকে বিচার করলে গুগোল একটু পেছিয়ে বিং এর চেয়ে।

যখন আপনি কোন মুভি ডাউনলোড লিঙ্ক খুজছেন
আমরা যারা মুভি লাভার তারা পছন্দের কোন মুভি বের হলে সেটা ব্লুরে (blue-ray) বা হাই (HD) রেজুলেশনে দেখতে পছন্দ করি। এজন্য গুগোলে সার্চ করলে সেটা নিয়ে বেশ ঝামেলা পোহাতে হয়। কারণ মুভি ডাউনলোড সাইটগুলোকে গুগোল খুব একটা ভালো চোখে দেখেনা, কারণ এই সাইটের কন্টেন্টগুলো পাইরেটেড (চুরি করা/কপি করা) হয়ে থাকে। যেটা এক দিক থেকে ভালো কাজ কারণ এতে ঐ প্রোডাকশনের (মুভিটা যে প্রোডাকশন বানিয়েছে) ক্ষতি হচ্ছে না। কিন্তু আপনি যেহেতু মুভিটার ডাউনলোড লিঙ্ক খুজছেন অথচ সঠিক লিঙ্ক পাচ্ছেন না তখন আপনার ভীষণ বিরক্ত লাগবে। কারণ এও হতে পারে এমন সাইটের লিঙ্ক ১ম পেজে এসেছে যেখানে মুভি ডাউনলোড করা যায় না। উদাহরণ হিসেবে আমি Avengers Infinity war full movie download 1080p blueray টাইপ করে সার্চ দিলে ২ নং ফলাফলে Quora এর মত একটি সাইটের লিঙ্ক দেয়া হয়েছে যা কিনা একটি প্রশ্ন-উত্তর সাইট হিসেবে জনপ্রিয়।

এ ধরনের ফলাফল গুলো আসে ভুল অ্যালগরিদমের কারণে। এক্ষেত্রে বিং আপনাকে সরাসরি ডাউনলোড লিঙ্কটা দিয়ে দিতে পারে (যেমনটা ছবিতে দেখছেন)। তাই যখনই কোন মুভির ডাউনলোড লিঙ্ক খুজবেন গুগোলে গিয়ে সময় নষ্ট না করাই ভালো।

অ্যাকুরেট রেজাল্ট
যেহেতু বেশীরভাগ মানুষ সার্চইঞ্জিন হিসেবে এখন গুগোল ব্যবহার করছেন তাই গুগোল এটাকে ভালো একটা বিজনেস হিসেবে নিয়েছে। বিভিন্ন নতুন ওয়েবসাইট গুগোলে কিছু অর্থ প্রদানের মাধ্যমে তাদের সাইটের লিঙ্ক প্রথম পেজের ১ নম্বরে নিয়ে আসছে। এতে করে যে তথ্য ইউজার খুজছেন ঐ ওয়েবসাইটে প্রয়োজনীয় সেই কন্টেন্ট না থাকলেও ইউজার ঐ সাইটে চলে যান (যেহেতু আমরা সবাই স্বাভাবিকভাবেই প্রথম পেজের ফলাফলগুলোতে বেশী ক্লিক করি)। এতে ঐ ওয়েবসাইট মালিকের লাভ হলেও যিনি ইউজার তিনি যেহেতু তার প্রয়োজনীয় তথ্যটি ঐ সাইটে পেলেন না তাই এ জন্য ইউজারের ঐ সময়টা পুরোপুরি নষ্ট হল।
তবে এ ধরনের ঘটনা খুব বেশী ঘটেনা। যেহেতু গুগোল তার গ্রাহোকদের দিকে সবসময় নজর দেয় তাই এধরনের ঘটনা খুব কম ঘটে।
অন্যদিকে বিং এ এধরনের ঘটনা গুগোলের চেয়েও কম ঘটে। আপনি যদি নতুন বিং ইউজার হন তাহলে এ ধরনের ঘটনা আপনার চোখে ধরা পড়বেনা।
উদাহরন হিসেবে নিচের ছবিগুলো দেখুন।

আমি একই প্রশ্ন দুই সার্চইঞ্জিনে করলেও গুগোল আগে বিজ্ঞাপন দেখিয়েছে।
এছাড়াও বেশীর সময় দেখবেন বিং এ আপনি কোন একটা বিষয়ে সার্চ করলে তা প্রথম পেজেই (যে ধরনের ফলাফল আপনি প্রত্যাশা করেছিলেন) চলে আসে। অন্যদিকে গুগোলে এটা ১ম পেজে থাকে খুব কম, বেশীরভাগ সময় সঠিক ফল পেতে আপনাকে আবারো সার্চ (কিওয়ার্ড একটু পরিবর্তন করে) দিতে হয় অথবা ২য় এবং ৩য় পেজগুলোর ফলাফল দেখতে হয়। এটা আসলে গুগোলের দোষ নয়, বিভিন্ন ওয়েব ডেভেলপার তাদের সাইটগুলো ১ম পেজে নিয়ে আসার জন্য ব্ল্যাক এসইও করে। কারণ গুগোলের ইউজার বেশী তাই তারা গুগোলেই এই ধরনের বিষয়গুলো করে, অন্যদিকে বিং এর ইউজার যেহেতু গুগোলের চেয়ে অনেক কম তাই বিং এ তারা সময় নষ্ট করেনা।

বিং রিওয়ার্ডস
বিং নিয়মিত ব্যবহার করলে মাইক্রোসফট থেকে বিভিন্ন কুপোন দেওয়া হয় যার মাধ্যমে ইউজার অ্যামাজন, বার্গার কিং, ওয়ালমার্ট থেকে শপিং করতে পারেন। আবার উইন্ডোজ স্টোর থেকে বিভিন্ন পেইড পিসি সফটওয়্যার ফ্রী তে ডাউনলোড করার সুযোগও পেয়ে যেতে পারেন। এটা করা হয় ক্রেডিট সিস্টেমের মাধ্যমে। ইউজারকে এজন্য বিং এ একটি মাইক্রোসফট একাউন্ট খুলতে হবে। এর পর বিং ব্যবহার করা শুরু করলে সেখানে ক্রেডিট জমা হবে। পুরো মাসে আপনি যত বেশী বিং ব্যবহার করবেন তত বেশী ক্রেডিট জমা হবে এবং কুপোন পাবার সম্ভাবনা তত বেশী থাকবে।
এ ধরনের বিষয়গুলোতে বিং এর চেয়ে গুগোল একটু পিছিয়ে। তবে এধরনের আরো কিছু বিষয় আছে যেগুলোতে গুগোল অনেক বেশী এগিয়ে থাকবে।

বিং যেখানে ৪০-৪৫ মিলিয়ন সার্চ রেজাল্ট আনতে পারে সেই একই সময় নিয়ে গুগোল এক বিলিয়নেরও বেশী সার্চ রেজাল্ট নিয়ে আসে। কারন গুগোলের তথ্য ভাণ্ডারে প্রচুর ওয়েবসাইট ইন্ডেক্স হয়ে আছে।
গুগোলের সার্চবারে আমরা যখন টাইপ করি গুগোল তখন আমাদের ইন্টেনশন অনুযায়ী কিছু সাজেশন দেখায় যেটা বিং এর আগে ছিলনা, গুগোলে এই ফীচারটি আসার পর বছর খানেক আগে বিং এই ফিচারটি তাদের সার্চইঞ্জিনেও যুক্ত করেছে।
ক্যালকুলেটর, স্টপওয়াচের মত(বিস্তারিত জানতে এই আর্টিকেলটি পড়ুন) এ ধরনের মজার কিছু ফীচার গুগোল যুক্ত করতে পেরেছে যা সত্যিই খুব মজার। কিন্তু বিং এধরনের সুবিধা গুলো তাদের সার্চইঞ্জিনে এখনও যুক্ত করেনি।

সত্যি বলতে সার্চইঞ্জিন হিসেবে কেউ কারো চাইতে কম যায় না, দুটোরই আলাদা আলাদা ভ্যালু আছে কারণ দুটোই বড় দুটি জায়ান্ট কোম্পানীর। এখানে আমরা কেবল একটা বাস্তব চিত্র তুলে ধরতে চেয়েছি, কোনটা সেরা আর কোনটা সেরা নয় সেটা একান্তই নিজেদের অভিমতের বিষয়।


বিঃদ্রঃ এই আর্টিকেলটি কাউকে হেয় প্রতিপন্ন করা বা বিজ্ঞাপন করার উদেশ্যে লিখা হয় নি। বাস্তব কিছু দিক চিন্তা করে তুলনামুলক একটা চিত্র তুলে ধরা হয়েছে মাত্র।

গুগোল সার্চ ইঞ্জিন হিসেবে বিং এর চাইতে যে দিকগুলো থেকে এখনো পিছিয়ে আছে (google vs bing) গুগোল সার্চ ইঞ্জিন হিসেবে বিং এর চাইতে যে দিকগুলো থেকে এখনো পিছিয়ে আছে (google vs bing) Reviewed by Rone Ahmed on July 29, 2018 Rating: 5

No comments:

Powered by Blogger.