number ones

হার্ডডিস্ক পার্টিশন করুন সহজে | HARD DISK PARTITION TOOL


আমাদের প্রয়োজনীয় বিভিন্ন তথ্য কম্পিউটারে স্টোর করে রাখতে হার্ডড্রাইভ বা এসএসডি এর কোন বিকল্প এখনো পর্যন্ত বের হয় নি।আমরা যদি একটা হার্ডড্রাইভকে সরাসরি ব্যবহার করি কোন রকম বিভাজন বা পার্টিশন করা ছাড়ায় তাহলে আমাদের বিভিন্ন তথ্য গুলো কম্পিউটার ওএসের (অপারেটিং সিস্টেম) সাথে একটা আরেকটার মাঝে গোলমাল হয়ে যাওয়াটা স্বাভাবিক।তাই আমরা হার্ডড্রাইভগুলোকে কাজের সুবিধার্থে পার্টিশন করে তার পর ব্যবহার করি।এতে করে একেকটা ড্রাইভে আমরা আমাদের পছন্দ মত ডেটাগুলো গুছিয়ে রাখতে পারি।
হার্ডড্রাইভ পার্টিশন
একটা সময় ছিলো যখন উইন্ডোজ ইন্সটল করা ছাড়া হার্ডডিস্ক পার্টিশন করা যেত না।এখন আর এমন সমস্যা নেয়।এখন ইচ্ছে মত যখন ইচ্ছা হার্ডড্রাইভ পার্টিশন করা করা যায়।ধরুন আপনার পিসিতে এখন সি ড্রাইভ সহ টোটাল তিনটা ড্রাইভ আছে।একটা ড্রাইভে মুভি রেখেছেন আর অন্যটাতে আছে সফটওয়্যার।এখন গেইম রাখার জন্য আরেকটি ড্রাইভ আপনার খুব প্রয়োজন হয়ে দাড়িয়েছে।কিন্তু আপনি ভাবছেন নতুন ড্রাইভ বানাতে হলে হয়তবা আপনাকে নতুন করে আবারো উইন্ডোজ ইন্সটল করতে হবে যা খুব ঝামেলার কাজ।তাহলে আপনি কি করবেন?
আপনার পিসির My computer অথবা This computer (উইন্ডোজ ১০) অপশনে গিয়ে মাউসের রাইট ক্লিক করুন।Open অপশনের নিচে manage নামে থাকা অপশনটিতে লেফট ক্লিক করুন।এরপরে একটা নতুন উইন্ডো ওপেন হবে।এই উইন্ডোর বামদিকে একেবারে নিচের ঠিক ওপরের দিকে Disk Management নামের অপশনটিতে লেফট ক্লিক করুন।এখানে আপনার ড্রাইভগুলো শো করবে।

বাম দিক থেকে একেবারে শেষের দিকে যে ড্রাইভটি থাকবে সেই ড্রাইভ থেকে কিছু স্পেস নিয়ে নতুন একটি ড্রাইভ বানানো সম্ভব এতে কোন রকম উইন্ডোজ ইন্সটল কিংবা হার্ডড্রাইভ ফরমেট দেবার প্রয়োজন পড়বেনা।চিত্রের দেখানো D ড্রাইভটি থেকে আমরা সম্পূর্ণ নতুন একটি ড্রাইভ তৈরী করব।এজন্য ডি ড্রাইভটির ওপরে মাউস রেখে রাইট ক্লিক করলে Shrink Volume নামে একটি অপশন আসলে তাতে লেফট ক্লিক করতে হবে।এর পরে নতুন যে উইন্ডো আসবে তাতে Enter the amount of space of shrink in mb এমন একটা আপশন থাকবে যার ডান পাশে আমরা যে ড্রাইভটি বানাবো তার সাইজটি এমবি (mb) এর হিসেবে বসাতে হবে।যেমন,আমরা যদি ১৪ জিবির একটা ড্রাইভ বানাতে চাই তাহলে ১৪ এর সাথে ১০২৪ গুন করলে এর ফলাফল হিসেবে যা আসবে তা এমবি এর পরিমাণে আসবে।গুনফল হিসেবে যা আসবে (14*1024=14336) তা ঐ ফর্মে বসাতে হবে।আপনি আপনার ইচ্ছা বা প্রয়োজনমত ড্রাইভটির পরিমাণ দিতে পারবেন,এখানে ১৪ জিবি দেওয়া হয়েছে।তবে শর্ত হলো আপনি যে পরিমাণ জায়গা নতুন ড্রাইভে নিতে চাচ্ছেন আপনার হার্ডডিস্ক বা এসএসডিতে ওই পরিমাণ খালি স্পেস অবশ্যই থাকতে হবে।ধরুন আপনি ৫০ জিবির একটা ড্রাইভ বানাবেন কিন্তু যে ড্রাইভ থেকে নতুন ড্রাইভ তৈরী করতে চাচ্ছেন তাতে ৫০ জিবি খালি জায়গা নেই তাহলে আপনি ৫০ জিবির একটি ড্রাইভ বানাতে হলে আগে ঐ ড্রাইভ থেকে ৫০ জিবি খালি করতে হবে অন্যথায় ৫০ জিবির কম অথবা যতটুকু স্পেস খালি দেখাচ্ছে ততটুকু স্পেসের ড্রাইভ তৈরী করতে পারবেন।
Enter the amount of space of shrink in mb লিখা অপশনের ঠিক ডান পাশে ১৪ জিবিকে এমবিতে হিসেব করলে যে মানটা (১৪৩৩৬) আসে তা বসানোর পরে shrink অপশনটিতে লেফট ক্লিক করতে হবে।এর পরে যে উইন্ডোটি ওপেন হবে তাতে ডি ড্রাইভের পরে ১৪ জিবির একটি ফ্রী স্পেস তৈরী হবে।
১৪ জিবি ফ্রী স্পেসের ওপরে মাউসের কার্সরটা রেখে রাইট ক্লিক করলে New simple volume নামে একটি অপশন আসবে,এতে লেফট ক্লিক করলে চিত্রের মত আসবে।
এতে নেক্সট অপশনটিতে ক্লিক করলে ১৪ জিবি পরিমানটি এমবি হিসিবে শো করবে।
এর পরে নতুন একটি উইন্ডো ওপেন হবে।যাতে ড্রাইভটি A,B অথবা যে কোন লেটারে চিহ্নিত করা যাবে।আমি এখানে B হিসিবে চিহ্নিত করেছি।এর পরে নেক্সটে ক্লিক করলে যে উইন্ডোটি ওপেন হবে তাতে ড্রাইভটির নাম সেলেক্ট করা যাবে।আমি এখানে নাম দিয়েছি books।আপনার খুশি মত যে কোন নাম টাইপ করে দিতে পারেন অথবা ডিফল্ট হিসেবে নিউ ভলিউম রেখে দিতে পারেন।এর পরে আর কোন কিছু পরিবর্তন না করে নেক্সট অপশনে ক্লিক করলে নতুন আরেকটি উইন্ডো আসবে যাতে finish বাটন এ ক্লিক করলে নতুন ড্রাইভটি তৈরী হয়ে যাবে।এবার আপনার কম্পিউটারএর ড্রাইভএ ঢুকলে নতুন একটি ড্রাইভ দেখতে পাবেন।

ডিস্ক এক্সটেন্ড
অনেক সময় বিশেষ কোন কারণে আমদের ড্রাইভ গুলোকে এক্সটেন্ড করতে হয়।এক্সটেন্ড করা মানে ড্রাইভটি এখন যে পরিমাণে আছে তার চাইতে কয়েকজিবি জায়গা বাড়িয়ে নেওয়া।বেশীর ভাগ সময় এটা করতে হয় সি ড্রাইভের ক্ষেত্রে।কারণ বিভিন্ন কারণে সি ড্রাইভে অতিরিক্ত জায়গার দরকার হয়।পার্টিশন যেভাবে সরাসরি পিসির মাধ্যমে করা গেলো,ড্রাইভ এক্সটেন্ড সেভাবে করা যায় না।এটা করতে গেলে সফটওয়্যার দরকার হয়।ইন্টারনেটে এ ধরনের অনেক ফ্রী সফটওয়্যার পাওয়া যায়।এদের মাঝে সহজ ইন্টারফেস এবং ফ্রী হিসেবে কাজে ভালো হল minitool partition wizardডাউনলোড লিঙ্ক.
লিঙ্কে গিয়ে সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করার পর ইন্সটল করে রান করুন।এর পরে
এর পরে চিত্রের মত আসলে বামদিকের minitool partition wizard free তে ক্লিক  করুন।এখন সফটওয়্যারটি ওপেন হবে এবং আপনার ড্রাইভগুলো শো করবে।
যে ড্রাইভটির স্পেস বাড়াতে চান তার ওপরে মাউসের লেফট ক্লিক করে রাইট ক্লিক করুন।ওপর থেকে ৪ নং অপশনটিতে ক্লিক করুন।এর পরে এরকম একটি উইন্ডো ওপেন হবে।এখন take free space from অপশনটি থেকে আপনি যে ড্রাইভটি থেকে স্পেস নিতে চাচ্ছেন তা সেলেক্ট করুন।
এর পর how much free space do you want to take অপশন থেকে যতটুকু স্পেস বাড়াতে চান তা সেলেক্ট করে নিন।এর পর ok প্রেস করুন।
এখন সফটওয়্যারটির ডান কোনায়
Apply নামে অপশনটিতে ক্লিক করুন।
এখন এ রকম একটা উইন্ডো আসলে এই সফটওয়্যার বাদে যাবতীয় সফটওয়্যারগুলো যেগুলো চলছে সেগুলো ক্লোজ করে দিন এবং
yes এ ক্লিক করুন।এই প্রক্রিয়াটি পুরো হতে কিছুক্ষণ সময় লেগে যেতে পারে।

হাইড পার্টিশন
অনেক সময় বিশেষ কোন একটা ড্রাইভে আমাদের ব্যাক্তিগত অথবা খুবই গূরুত্বপূর্ণ ডেটা রাখতে হয়।পিসিতে প্রাইভেসি কিংবা পাসওয়ার্ড ব্যবহার করলেও বেশীরভাগ ক্ষেত্রে এসব ডেটা লিক হয়ে যাবার ভয় থেকেই যায়।সেজন্য সবচাইতে কাজের একটা উপায় হচ্ছে ওই ড্রাইভটিকে হাইড করে ফেলা বা লুকিয়ে রাখা।এতে করে আপনাকে প্রাইভেসি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে মোটেও ঝামেলায় পড়তে হবেনা।কারণ একটা ড্রাইভ হাইড করে রাখলে কেউ কখনই টের পাবেনা যে আসলেই একটা ড্রাইভ হাইড হয়ে আছে কি না।এটা শুধুমাত্র আপনিই জানবেন।এটা করতে গেলে আলাদা কোন সফটওয়্যারএরো প্রয়োজন পড়বেনা।একটু আগে যে সফটওয়্যারটা ডাউনলোড করেছেন সেই সফটওয়্যার দিয়েই এটা করা যাবে।এ জন্য যে ড্রাইভটি হাইড করতে চান তারওপর মাউসের লেফট ক্লিক করে
বামদিকের হাইড পার্টিশন আপশনটিতে ক্লিক করুন।
এর পরে Apply বাটনটিতে ক্লিক করুন।
এখন এ রকম একটা উইন্ডো আসলে এই সফটওয়্যার বাদে যাবতীয় সফটওয়্যারগুলো যেগুলো চলছে সেগুলো ক্লোজ করে দিন এবং yes এ ক্লিক করুন।এই প্রক্রিয়াটি পুরো হতে কিছুক্ষণ সময় লেগে যেতে পারে।একইভাবে এটা আনহাইডও করতে পারবেন।
রিস্টোর পার্টিশন
বিভিন্ন কারণে হার্ডড্রাইভের পার্টিশন অনিচ্ছাকৃতভাবে ডিলিট হয়ে যেতে পারে।ডিলিট হয়ে যাওয়া ওই পার্টিশনটিও এই সফটওয়্যারটির মাধ্যমে রিকোভার করা সম্ভব।তবে এটা করতে হলে এই সফটওয়্যারটিকে প্রো ভার্সনে আপগ্রেড করতে হবে কারণ ফ্রী ভার্সন গুলোতে সমস্ত সুবিধা থাকেনা।
পার্টিশন রিকোভারি নামে এই অপশনটিতে ক্লিক করার পরে কিছু ইন্সট্রাকশান ফলো করে ডিলিট হওয়া পার্টিশনটি ফিরে পাওয়া সম্ভব।তবে এটা একটা সময় সাপেক্ষ প্রক্রিয়া।পুরো প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হতে সময় লাগে।
এই সফটওয়্যারটিতে থাকা migrate os to ssd/hdd অপশনটি দিয়ে অপারেটিং সিস্টেমকে এসএসডি থেকে হার্ডড্রাইভ কিংবা হার্ডড্রাইভ থেকে এসএসডি তে মুভ করা যায়।এর জন্য নতুন হার্ডড্রাইভ কিংবা এসএসডিতে আলাদাভাবে উইন্ডোজ দিতে হবেনা।সম্ভব হলে এ নিয়ে একদিন বিস্তারিত লিখতে চেষ্টা করব।লিখাটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ।লিখাটি ভালো লাগলে অথবা কোন উপকারে আসলে বন্ধুদের কাছে শেয়ার করুন।



No comments